ভুল সংশোধন
মাওলানা শামসুল হক ফরিদপুরী (রহ.)
আল-আশরাফ প্রকাশনী 

পড়ুন 

মাওলানা শামছুল হক ফরিদপুরী বাঙলার মুসলমানদের কাছে পরিচিত ব্যাক্তি ও সম্মানিত একজন আলেম।
তিনি দীর্ঘদিন জামায়াতে ইসলামীর সাথে সম্পর্ক বজায় রাখেন।
অতঃপর জামায়াত-শিবিরের প্রকৃত রূপ তাঁর সামনে উন্মোচিত হয়।
তখন তিনি জামায়াত ছেড়ে দিয়ে জামায়াতে ইসলামীর ভন্ডামীর কথা জাতির সামনে উন্মোচিত করেন।
তিনি জাতিকে মওদূদী ফিতনার ভয়াবহতা থেকে সতর্ক করার জন্য অত্যন্ত যুক্তিযুক্ত ও প্রামান্য গ্রন্থ ‘ভুল সংশোধন’ রচনা করেন।
এই বই লেখার কারন কী?
এর জবাবে তিনি বলেন-
যে কেউ একজন মুসলমানের উপর আঘাত হানবে, সেই হামলা প্রতিরোধের জন্য যে মুসলমান পাশে দাঁড়াবে, আল্লাহ তাঁর জন্য দোজখের আগুন হারাম করে দেবেন।
একজন সাধারণ মুসলমানের বেলায় এরূপ বলা হয়েছে।
সাহাবীদের মর্যাদা একজন সাধারণ মুসলমানের চেয়ে অনেক অনেক বেশি।
একজন সাহাবীর উপর কেউ মিথ্যা কুৎসা রটানো অথবা যেকোনো উপায়ে হামলা করলে যে ব্যক্তি তাঁর বিরুদ্ধে দাঁড়াবে, আল্লাহর কাছে তাঁর ফজিলত আরও বেশি।
এ ফজিলতের সওয়াব হাসিল করা আমার অন্যতম উদ্দেশ্য।
মওদূদী সাহেব যদি তাঁর কৃতকর্মের কথা নিজে না স্বীকার করেন, তাহলে তাঁর গঠিত দলে যোগদান করা জায়েজ হয় কিভাবে?
অর্থাৎ যতক্ষণ পর্যন্ত তারা তাদের স্বীয় অপকর্ম স্বীকার না করেন, ততক্ষণ পর্যন্ত কোনো মুসলমানের জামায়াতে ইসলামীতে যোগদান করা জায়েজ হবে না।
যারা সাহাবীদের দোষ চর্চায় লিপ্ত, তাদের পেছনে নামাজ আদায় করা নাজায়েজ।